শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০২:১৪ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
ফুলবাড়িয়ায় ব্যবসায়ী সমিতি উপজেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর বৈঠক অসহায় পরিবারের পাশে ফুলবাড়ীয়া উপজেলা যুবলীগ খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায়দের বাড়ীতে ইউএনও আশরাফুল ছিদ্দিক ও ইউপি চেয়ারম্যান বাদল করোনা ভাইরাস জনসচেতনতায় ফুলবাড়িয়ায় ব্র্যাকের ৪০জন কর্মী মাঠে করোণা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনত করতে এনায়েতপুর ইউনিয়নে ছাত্রলীগ সভাপতি করোণা প্রতিরোধে ফুলবাড়িয়া পৌর সভার জীবানুনাশক স্প্রে শুরু ফুলবাড়িয়ায় করোণা প্রতিরোধের আইন না মানায় ৪ব্যবসায়ীর জরিমানা ফুলবাড়িয়ায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে উপজেলা প্রশাসনের চিরুনি অভিযান করোণা ভাইরাস : উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো: রফিকুল ইসলাম রাকিব‘র উদ্যোগ করোণা ভাইরাস : মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করলেন পৌর মেয়র গোলাম কিবরিয়া

ত্রিশ বছরেও যে রাস্তায় মাটি পড়েনি সেখানেও পড়েছে ৪০ দিনের মাটি

ফুলবাড়িয়া নিউজ 24 ডট কম : ত্রিশ বছরেও যে রাস্তায় মাটি পড়েনি সেখানেও পড়েছে ৪০ দিনের মাটি। একটা সময় ছিল যখন গ্রামের মানুষ হাটু পানি ও কাঁদা দিয়ে পাড় হতো এখন সড়ক দিয়ে যাচ্ছে। বাতর (আইল) ছিল এখন রিক্সা বা ভ্যান দিয়ে চলাচল করা যায়। এসবই সংস্কার হয়েছে উপজেলার বালিয়ান ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের রাস্তা। অনেক এলাকার মানুষ স্বপ্ন দেখেন রাস্তা পাকা হবে, গাড়ী চলবে।
ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮-১৯ ইং সালের ২য় পর্যায়ে অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় ৩টি ওয়ার্ডে ৫টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। প্রকল্পগুলো হলো বালাশ^র পাকা রাস্তা হতে খাঁন বাড়ী ও মীর বাড়ী শাখা রাস্তা সহ মোফাজ্জলের দোকান পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার, বালাশ^র ভাটিপাড়া পাকা রাস্তা হতে বিলপাড় হয়ে মোখলেছ মেম্বারের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার, বালিয়ান কাজী বাড়ী হতে এডভোকেট মোসলেম উদ্দিন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার, দত্তপাকুটিয়া ড. আ. মালেক সাহেবের বাড়ী হতে মেহেরগাও হয়ে মোহাম্মদ নগর বাজার পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার, সুরেরপাড় দক্ষিনপাড়া পাকা রাস্তা হতে বালিয়ান কাজীবাড়ী পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার।
সরেজমিনে স্থানীয়দের সাথে কথা বললে তারা তাদের মতো করে বলেন, অনেক রাস্তা আছে যেখানে মাটির অভাবে বিগতদিনের চেয়ারম্যানের ইচ্ছা থাকা সত্বেও মাটি দেয়া হয়নি। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান বিভিন্ন কৌশলে আমাদের সাথে সমন্বয় করেই মাটি নিতে সক্ষম হয়েছেন। মাটি দেয়ার পর আমরা বুঝতে পেরেছি রাস্তাটা আমাদের কত উপকারে আসছে। আমরা স্বপ্ন দেখি একদিন রাস্তা পাকা হবে। গাড়ি চলবে, আমরা স্বল্প খরচে আনাগোনা করতে পারবো।
৫নং ওয়ার্ডের আ. সামাদ (১০৫) বলেন, ৩০ বছর পর দ্বিতীয়বারের মতো এ চেয়ারম্যান রাস্তায় মাটি দিলো। কদ্দুস চেয়ারম্যানের পর আর কেউ মাটি দেয়নি এ রাস্তায়। আগে এ রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়া যেত না, এখন রিক্সা, ভ্যান চলাচল করে।
মো. মোখলেছুর রহমান (৬০) বলেন, শুনলাম রাস্তা না কি এমপি স্যার পাকা করে দিবে। আমরা রাস্তা হওয়াতে খুব খুশি।
৪নং ওয়ার্ডের পাঁচন আলী (৯৫) বলেন, আমরা এ এলাকার শতাধিক পরিবারের ৩শ ভোটার বৃষ্টি হলে হাতরাইয়া (সাঁতরাইয়া) পাড় হইতাম, রাস্তায় মাটি দেয়ার ফলে এখন লাঠি ভর দিয়া পাকা রাস্তায় যাইতে পারি।
ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফ উজ্জামান সরকার বলেন, মানুষ খুব আশা করে আমাকে চেয়ারম্যান বানাইছে, তাদের কাজ করার জন্য। চেষ্টা করে যাচ্ছি তাদের সেবা করার। রাস্তা সংস্কার করতে গিয়ে অনেক বাঁধার সম্মুখীন হয়েছি সেটা সকলের সহযোগিতায় সমাধান হয়েছে। রাস্তা দিয়ে মানুষ চলাচল করে উপকৃত হলেই আমার স্বার্থকতা।

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইট © ফুলবাড়িয়ানিউজ২৪ ডট কম ২০২০
Design & Developed BY A K Mahfuzur Rahman