শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০৪:২০ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
ফুলবাড়িয়ায় ব্যবসায়ী সমিতি উপজেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর বৈঠক অসহায় পরিবারের পাশে ফুলবাড়ীয়া উপজেলা যুবলীগ খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায়দের বাড়ীতে ইউএনও আশরাফুল ছিদ্দিক ও ইউপি চেয়ারম্যান বাদল করোনা ভাইরাস জনসচেতনতায় ফুলবাড়িয়ায় ব্র্যাকের ৪০জন কর্মী মাঠে করোণা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনত করতে এনায়েতপুর ইউনিয়নে ছাত্রলীগ সভাপতি করোণা প্রতিরোধে ফুলবাড়িয়া পৌর সভার জীবানুনাশক স্প্রে শুরু ফুলবাড়িয়ায় করোণা প্রতিরোধের আইন না মানায় ৪ব্যবসায়ীর জরিমানা ফুলবাড়িয়ায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে উপজেলা প্রশাসনের চিরুনি অভিযান করোণা ভাইরাস : উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো: রফিকুল ইসলাম রাকিব‘র উদ্যোগ করোণা ভাইরাস : মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করলেন পৌর মেয়র গোলাম কিবরিয়া

গরু পালন করায় মুসলিম নারীকে ‘মারধর’!

ফুলবাড়িয়া নিউজ 24 ডট কম : মুসলিম নারী হয়েও গরু পালন, বিষয়টিকে সহজভাবে নিতে পারেননি তারা। বিষয়টিকে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। তাই এই অপরাধে এক নারীকে পিটিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার (৩০ জুন) ভারতের ভোপালে এই ঘটনা ঘটে।

ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, হামলার শিকার ওই গরু পালকের নাম মেহরুনিসা খান। তিনি দেশটির ন্যাশনাল কাউ সার্ভিস করপোরেশনের মধ্যপ্রদেশ শাখার সভাপতি।
এ বিষয়ে মেহরুন্নিসা বলেন, ‘ওরা প্রস্তুতি নিয়েই এসেছিল। আমাকে অপহরণের চেষ্টা করে। এমনকি হত্যা করার হুমকিও দিয়ে গিয়েছে। পরের বার হয়তো অ্যাসিড দিয়ে হামলা করতে পারে। আমি খুব আতঙ্কে আছি।’

এদিকে প্রাণনাশের ভয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাহায্য প্রার্থনা করে চিঠি লিখেছেন মেহরুন্নিসা।

মেহরুন্নিসা অভিযোগ করেন, ‘খামারে গরু পালন করায় তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা প্রতিনিয়তই মারধর করত। এমনকি তার বাবা-মাও এ কাজে তাকে সমর্থন করে না।’

নির্যাতিত এই নারী বলেন, ‘হামলাকারীরা আমায় হোয়াটসঅ্যাপে হুমকি দেয়। মাথাকাটা কয়েকটি দেহের ছবি পাঠিয়ে বলেছে, পরেরটা আমারও হতে পারে। হয় মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হও, নয়তো নিজেকে রক্ষা করো।’

মেহরুন্নিসা আরও জানান, গরু রক্ষা করা ও তিন তালাকের বিরুদ্ধে কথা বলায় শ্বশুরবাড়িতে নির্যাতন সহ্য করতে হয়েছে তাকে। পুলিশকে অভিযোগ জানানোর চার মাস হয়ে গিয়েছে। কিন্তু পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তাই নিরুপায় হয়ে প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হন তিনি।

জানা গেছে, মেহরুন্নিসার একটি গরুর খামার আছে। ভোপাল থেকে সেখানে যাতায়াত করেন। তিনি বলেন, ‘যখন থেকে এই কাজ শুরু করেছি, তখন থেকে হুমকিও পেতে শুরু করি। শুধু বাইরের লোক নয়, পরিবারের লোকও হত্যার হুমকি দিয়েছে। কেননা এতে নাকি পরিবারের বদনাম হচ্ছে।’

মেহরুন্নিসার প্রশ্ন, একটা বোবা প্রাণীর জন্য কাজ করলে কীভাবে পরিবারের সম্মান নষ্ট হয়ে যায়? এতকিছুর পরেও গরু নিয়ে কাজ করা থেকে পিছপা হননি তিনি।

আমাদের সময় অন লাইন থেকে সংগৃহিত

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইট © ফুলবাড়িয়ানিউজ২৪ ডট কম ২০২০
Design & Developed BY A K Mahfuzur Rahman