মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত জাগ্রত আছিম গ্রন্থাগারের নতুন কমিটি: সভাপতি তামিম : সম্পাদক জাহিদ প্রধানমন্ত্রীর উপহার : গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেলেন শরীফ আহমেদ ডিজিটাল প্রোডাক্টস ক্যাম্পেইন উদ্বোধনে জোন প্রধান ড. মুহাম্মদ সোলায়মান ফুলবাড়িয়ায় ছাত্রদলের মত বিনিময় সভা উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে ইত্তেফাকুল উলামার মানববন্ধন কর্মচারীর মৃত্যুতে প্রধান শিক্ষক সায়ফুল ইসলাম কাজলের শোক প্রকাশ ফুলবাড়িয়ায় আইসিটি ফোরামের সভা অনুষ্ঠিত মুজিব বর্ষে ফুলবাড়িয়া পৌরসভার বিশেষ সেবা ক্যাম্প

গৌরীপুরে শিক্ষক হত্যায় ১৭ পরিবারের ২৮ ঘর পুড়িয়ে দিল বিক্ষুব্দ ছাত্ররা

মশিউর রহমান কাউসার, গৌরীপুর : ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার সিধলা ইউনিয়নে কুতুবপুর গ্রামে মাদ্রাসা শিক্ষক মহির উদ্দিন (৫০) তুচ্ছ ঘটনায় প্রতিপক্ষের হামলায় নিহতের ঘটনায় বিক্ষুব্দ মাদ্রাসা ছাত্ররা স্থানীয় ১৭ টি পরিবারের ২৮ টি ঘর ও মালামাল আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে। বুধবার (৩০ মে) সকাল ১০ টার দিকে এ অগ্নিসংযোগের ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে ইশ্বরগঞ্জ উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা প্রায় ৬ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে উক্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। গৌরীপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। উল্লেখ্য শুক্রবার প্রতিপক্ষের সংঘর্ষে গুরুতর আহত মহির উদ্দিন মাষ্টার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাত ১০ দিকে মারা যান। এ মৃত্যুর খবরে মাদ্রাসা ছাত্র ও এলাকাবাসীর মাঝে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

গ্রামের লোকজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান উল্লেখিত গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের পুত্র মাদ্রাসা শিক্ষক মহির উদ্দিনের সাথে একই গ্রামের মৃত আকম আলীর পুত্র সাইদুর সরকারের (৪২) সাথে কাঁচা রাস্তায় ভারী যান চলাচলকে কেন্দ্র করে দ্বন্দের সৃষ্টি হয়। এনিয়ে শুক্রবার (২৫ মে) রাত ১০ টার দিকে মহির উদ্দিনের বাড়ির সামনে রাস্তায় উভয় পক্ষের মাঝে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে মহির উদ্দিন মাষ্টার ও তার চাচাতো ভাই চাঁন মিয়া (৫০) এবং প্রতিপক্ষ সাইদুর সরকার ও তার পুত্র নিলয় সরকার (২২) মারাত্মক জখম হয়। ওইদিন গুরুতর আহত মহির উদ্দিন ও চাঁন মিয়াকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে মহির উদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (২৮ মে) রাত ১০ দিকে তিনি মারা যান। এদিকে তার মৃত্যুর খবরে তারাটি দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। বুধবার নিহতের জানাযার নামাজের আগে সকাল ১০ টার দিকে তারাটি দাখিল মাদ্রাসার বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা গ্রামের ১৭ টি পরিবারের ২৮ টি ঘর ও তাদের সম্পূর্ন মালামাল আগুনে পুড়িয়ে দেয়। এ অগ্নিসংযোগের ঘটনায় প্রায় ১ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। নিহতের ভাই জহুর উদ্দিন (৪০) জানান গ্রামের কাঁচা রাস্তা দিয়ে মাছ পরিবহনকালে সাইদুর সরকার তাই ভাই মহরি উদ্দিনকে বাঁধা প্রয়োগ করত। এনিয়ে উভয়ের মাঝে দ্বন্দের সৃষ্টি হয়েছিল। ঘটনারদিন রাতে তার ভাই মহির উদ্দিনকে ডেকে নিয়ে বাড়ির সামনে সাইদুর সরকারের নেতৃত্বে প্রায় ১৫/২০ সসস্ত্র লোকজন কুপিয়ে তাকে মারত্মক রক্তাত্ব জখম করে। এসময় বাঁচাতে গিয়ে আহত হন চাচাতো ভাই চাঁন মিয়া। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার ভাইয়ের মৃত্যু হয়। পরে এ মৃত্যুর খবরে বিক্ষুব্দরা ছাত্ররা হামলার সাথে জড়িতদের বাড়ি-ঘরে অগ্নিসংযোগ করে। গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার আহম্মদ জানান উল্লেখিত ঘটনায় প্রয়োজনীয় তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এদিকে সরজমিনে দেখা গেছে অগ্নিসংযোগে কুতুবপুর গ্রামের , সাইদুল সরকার, এরশাদ সরকার, মমতাজ উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন, এনায়েত হোসেন, আব্দুল জব্বার, জরিনা আক্তার, আনু মিয়া, সোলেমান মিয়া, আরাফাত হোসেন, গণি মিয়া, এয়াকুব আলী, মোফাজ্জল, কাশেম, দুলাল মিয়া, ছাইদুল এ ১৬ পরিবারের মোট ২৮ টি ঘর ও মালামাল আগুনে পুড়িয়ে ভস্মিভূত করে মাদ্রাসা ছাত্ররা। এদিকে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় ভুক্তভোগী মোফাজ্জল হোসেন ও আকরাম হোসেন জানান আমরা সংঘর্ষের ঘটনার সাথে জড়িত ছিলাম না অথচ আমাদের মৌলবী বাড়িতে ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়ে ব্যাপক ক্ষতি করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইট © ফুলবাড়িয়ানিউজ২৪ ডট কম ২০২০
Design & Developed BY A K Mahfuzur Rahman