সিএনজি ভর্তি ফিস মাসিক চাঁদা ও জিপি কমানোর দাবীতে ফুলবাড়ীয়ায় সিএনজি ধর্মঘট


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ২২, ২০১৮, ৩:৩৩ PM
সিএনজি ভর্তি ফিস মাসিক চাঁদা ও জিপি কমানোর দাবীতে ফুলবাড়ীয়ায় সিএনজি ধর্মঘট

ফুলবাড়িয়া নিউজ 24 ডট কম : ফুলবাড়ীয়া-ময়মনসিংহ রোডে সিএনজি থেকে প্রতিদিন জিপি, মাসিক চাঁদা, ভর্তি ফিস কমানো, শ্রমিকদের সাথে অসাদাচরনের প্রতিবাদে মালিক ও চালকরা অনির্দিষ্টকালের জন্যে সিএনজি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। ২১ ফেব্রুয়ারি বিকাল থেকে আন্দোলনে নামায় এ রোডে কোন সিএনজি ফুলবাড়ীয়ায় আসা-যাওয়া করছে না। ফলে যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
চালক ও মালিকরা জানিয়েছেন, ফুলবাড়ীয়া থেকে ময়মনসিংহগামী সিএনজি থেকে আগে ১০ টাকা করে চাঁদা উত্তোলন করা হতো সেই চাঁদা এখন দিতো হয় ৪০ টাকা। প্রতিদিন প্রতিটি গাড়ীকে গ্যাস নেয়ার জন্য ময়মনসিংহে যেতে হয় তার জন্যে তিন স্থানে চাঁদা দিতে হয়। অথচ অন্যান্য জায়গায় এক স্থানে চাঁদা দিলে ঐ রোডে বা ঐ শহরে আর কোথাও চাঁদা দিতে হয় না। কিন্ত ময়মনসিংহ শহরে প্রবেশ করলে ৩টি স্থানে চাঁদা দিতে হয়। বাইপাস ফুলবাড়ীয়া অংশে ৩০ টাকা ঐ প্রান্তে ৪০ টাকা, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মোড়ে ৪০ টাকা।
তারা আরও জানান, পৌরসভার রশিদে লেখা আছে ১০ টাকা নেয়া হয় ২০ টাকা শ্রমিক কল্যাণের রশিদে একই ধরনের লেখা। গত সপ্তাহে আবারও বাড়ানো হয়েছে চাঁদার অংক। পৌরসভার দোহাই, শ্রমিক কল্যাণসহ এই সেই খরচ দেখিয়ে প্রতিদিন একেকটি সিএনজিকে গুনতে হয় ১০০ টাকার অধিক। থানার মাসিক চাঁদা হিসাবে প্রতিমাসে গুনতে হয় ৪০০ টাকা।
চালকদের অভিযোগ, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যেতে চাইলে বাইপাসের দু’ প্রান্তে টাকা দেয়ার পরও সেই রশিদের কোন ভেলু (মুল্য) থাকে না। আবারও দিতে চাঁদা। চাঁদার রমরমা ও শ্রমিক নির্যাতন বন্ধ করতে তাদের আন্দোলনে স্থানীয় শ্রমিক নেতারাও একমত পোষ করেছেন।
সিএনজি, অটো-টেম্পু শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো: মনির উদ্দিন জানান, শ্রমিকদের নিয়ে আমার কাজ, তাদের পাশে আছি, তারা নির্যাতিত হোক সেটি আমি চাই না।

https://www.bkash.com/