রঘুনাথপুরে বোন হত্যার বিচার ও ধর্ষকদের ফাঁসির দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন


প্রকাশের সময় : মার্চ ৭, ২০২৩, ৬:৪৩ PM
রঘুনাথপুরে বোন হত্যার বিচার ও ধর্ষকদের ফাঁসির দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

ফুলবাড়িয়া : ‘ধর্ষকদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হও এক সাথে’ স্লোগানের আলোকে গতকাল সোমবার বিকালে ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার রঘুনাথপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এলাকাবাসী মানববন্ধন ও শোক র‌্যালি হয়েছে। গণধর্ষণের শিকার ফাহিমা আক্তার ঐ স্কুলের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। বোন হত্যার বিচার চাই, হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হাজারও মানুষে যোগদেয় স্থানীয় তরুণ ছাত্রদের সংগঠন স্পার।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন রঘুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুর রাজ্জাক, রাধাকানাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আয়ুব আলী মাস্টার, আওয়ামীলীগ নেতা ও সমাজ সেবক সারোয়ার আলম রোকন তরফদার, রঘুনাথপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি মোহাম্মদ আলী মাস্টার, ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু তাহের মেম্বার, স্পার সভাপতি গোলাম মোর্তুজা কাজল, স্পার সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম।
মামলার বাদী ও ধর্ষিতার মা হাসিনা খাতুন বলেন, আমার মেয়েরে যারা ধ্বংস করছে তাদের ফাঁসি চাই ফাঁসি চাই ধর্ষনকারী ও হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।
এ সময় ভিক্টিমের বাবা আঃ খালেক সহ এলাকার বিভিন্ন পর্যায়ের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
মানববন্ধনে অংশ নিয়ে এলাকাবাসী বলেন, আমরা এ ধরনের হত্যাকান্ড চাই না। এ জাতীয় অপরাধের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি হলে অপরাধ কমে আসবে।

 


গত ২৫ ফেব্রয়ারি সন্ধ্যায় ঐ কিশোরী সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে প্রকৃতির ডাকে (টয়লেট) সারা দিতে ঘর থেকে বের হলে গ্রেফতারকৃত ৫ ধর্ষণকারীসহ আরো ৩ জন তার মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক বাড়ীর পার্শ্ববর্তী এলাকায় নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পালাক্রমে ধর্ষণ শেষে ধর্ষণকারীরা পরিকল্পিতভাবে কিশোরীকে গলাটিপে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে তার লাশ সামান্য দুরে এনে লাশের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে গাছের ডালে লাশ ঝুলিয়ে রেখে পালিয়ে যায় চক্রটি। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় নিহতের মা হাসিনা খাতুন ফুলবাড়িয়া থানায় মামলা করেন। মামলা নং-৩২ (২) ২৩।
মামলাটিকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে পুলিশ সুপার তাৎক্ষণিক ডিবি পুলিশকে দায়িত্ব প্রদান করেন। ডিবি পুলিশের এসআই আমিনুল ইসলামসহ একাধিক কর্মকর্তার নেতৃত্বে পৃথক টিম গঠন করে টানা অভিযান শুরু করে। অভিযানে গণধর্ষন ও হত্যাকান্ডের মুলহোতাসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করে। শনিবার (৪ মার্চ) সকালে পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভুঞা এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। এসপি আরও জানান, গ্রেফতারকৃত মোঃ রাসেল মিয়া ও মোঃ আলমগীর হোসেন কে আদালতে পাঠানো হলে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। আসামি মোঃ শাহজাহানের কাছ থেকে গণধর্ষণ ও হত্যার শিকার কিশোরীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার হয়।

https://www.bkash.com/