মুজাহিদের রিভিউ শুনানি শেষ, রায় বুধবার


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৭, ২০১৫, ৬:২৬ AM
মুজাহিদের রিভিউ শুনানি শেষ, রায় বুধবার

Mojahid1428818106ফুলবাড়িয়া নিউজ 24ডটকম : একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের রিভিউ শুনানি শেষ। শুনানির রায় প্রদান করা হবে বুধবার।

মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ রায়ের তারিখ ঘোষণা করেন।

এই বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

এর আগে, মুজাহিদের পক্ষে রিভিউ আবেদনের শুনানি শেষ করেন তার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন।

মঙ্গলবার সকাল ৯টার কিছু পর মামলাটি কার্যতালিকায় আসলে খন্দকার মাহবুব শুনানি শুরু করেন।

শুনানিতে খন্দকার মাহবুব বলেন, ১৯৭১ সালে আলী আহসান মুজাহিদ ইন্টারমিডিয়েটের ছাত্র ছিলেন। তিনি তখন ছাত্র সংঘের সেক্রেটারির দায়িত্ব পালন করতেন। মাত্র অল্প বয়সের একজন ছাত্র সারাদেশে এ ধরনের কর্মকান্ড চালাতে পারেন না। খন্দকার মাহবুব আরো বলেন, বাংলাদেশে বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ডের ব্যাপারে স্বাধীনতার পর ৪২ টি তদন্ত হয়েছিলো কিন্তু কোনটিতেই মুজাহিদের নাম পাওয়া যায়নি।

এরপর ১১টা ৫৫ মিনিটে খন্দকার মাহবুব তার বক্তব্য শেষ করেন। এ সময় তাকে সহযোগীতা করেন এডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির। খন্দকার মাহবুবের বক্তব্য শেষ হওয়ার পরই রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি শুরু করেন এটর্নী জেনারেল মাহবুবে আলম। এরপর বেলা ১১ টায় কোর্ট বিরতিতে যায়।

জামায়াতে ইসলামী সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদ এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রিভিউ শুনানি ঘিরে সুপ্রিমকোর্ট ও এর আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার এই দুই নেতা রিভিউ আবেদন শুনানির জন্য আপিল বিভাগের কার্যতালিকার ২ ও ৩ নম্বরে রাখা হয়।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর মুজাহিদ ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মানবতাবিরোধী মামলার চূড়ান্ত রায় প্রকাশ করে। পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর নিয়ম অনুযায়ী ১৫ দিনের মধ্যে রিভিউ আবেদন করতে হয়। সে অনুযায়ী সময় শেষ হয়ে যাওয়ার একদিন আগেই রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করা হয়।

এরপর গত ১৫ অক্টোবর রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল রিভিউ শুনানির দিন নির্ধারণের জন্য আপিল বিভাগে আবেদন করেন। চেম্বার আদালত সেটি ২ নভেম্বর শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দেয়।

২০১৫ সালের ১৬ জুন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদকে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদ-াদেশ বহাল রাখে। বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন- বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

এর আগে ২০১৩ সালের ১১ আগস্ট আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ খালাস চেয়ে আপিল করেন।

২০১৩ সালের ১৭ জুলাই বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ মুজাহিদকে মৃত্যুদ-াদেশ দিয়ে রায় ঘোষণা করে।

২০১০ সালের ২৯ জুন আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১১ সালের ১১ ডিসেম্বর ডিসেম্বর তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করে প্রসিকিউশন। ২০১২ সালের ২৬ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল।
সূত্র- আমাদের সময় ডটকম

https://www.bkash.com/