ময়মনসিংহে মাটির নীচের গুপ্ত পথ


প্রকাশের সময় : মার্চ ৪, ২০২৪, ১০:৫০ AM
ময়মনসিংহে মাটির নীচের গুপ্ত পথ

ময়মনসিংহের হারানো ইতিহাস!
মাটির নীচের গুপ্ত পথ (Lost of paradise)
ময়মনসিংহের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দখল করে আছে আলাপসিং পরগনা। এই পরগণার জমিদারদের মধ্য একজন ছিলেন মহারাজা সূর্য্যকান্ত আচার্য ।
সূর্যকান্ত আচার্য চৌধুরীর শাসনামলে ব্রহ্মপুত্র তীরবর্তী জনপদে যুক্ত হয়েছিলো সোনালি মাত্রা। প্রায় ৪১ বছর জমিদারি পরিচালনার প্রেক্ষাপঠে বহু জনহিতকর কাজ করেছেন তিনি। ময়মনসিংহে স্থাপন করলেন একাধিক নান্দনিক স্থাপনা। রাজরাজেশ্বরী জলকল।
ঊনবিংশ শতকের শেষের দিকে ময়মনসিংহ শহরের কেন্দ্রস্থলে নয় একর ভূমির ওপর একটি অসাধারণ দ্বিতল ভবন নির্মাণ করলেন সূর্যকান্ত। নিঃসন্তান সূর্যকান্তের দত্তক পুত্র শশীকান্ত আচার্য চৌধুরীর নামে এই ভবনের নাম রাখা হলো শশী লজ। বিখ্যাত এই ভবনটি ১৮৯৭ সালের ১২ জুন গ্রেট ইন্ডিয়ান ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত হলে অত্যন্ত ব্যথিত হন সূর্যকান্ত আচার্য চৌধুরী। ১৯০৫ সালে ঠিক একই স্থানে নতুনভাবে শশী লজ নির্মাণ করেন পরবর্তী জমিদার শশীকান্ত আচার্য চৌধুরী। ১৯১১ সালে শশী লজের সৌন্দর্যবর্ধনে তিনি সম্পন্ন করেন আরও কিছু সংস্কারকাজ।
জমিদার সূর্যকান্ত মুক্তাগাছার জমিদারদের বংশধর। কথিত আছে জমিদার সূর্য্যকান্ত তার প্রাসাদের নীচে একটি সুরঙ্গপথ তৈরী করে ছিলেন, যেটি দিয়ে তিনি মুক্তাগাছাসহ ময়মনসিংহ শহরের বাঁশবাড়ি ও ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে যেতে পারতেন। অনুমান করা হয় সেই দীর্ঘ সুরঙ্গ বা গুপ্ত পথটি হয়তো এরকম ছিলো। কে জানে? হয়তো এটাই ছিলো সেই সুরঙ্গ পথ!
#Mymenshing #anindamintu #rajbari #muktagacha #king #jamidar
তথ্য : সংগৃহিত

https://www.bkash.com/