ভালুকায় ওয়াহেদের জনসংযোগে উচ্ছ্বসিত এলাকাবাসী


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১০, ২০১৭, ৮:১৮ AM
ভালুকায় ওয়াহেদের জনসংযোগে উচ্ছ্বসিত এলাকাবাসী

মোঃ জাহিদুল ইসলাম খান,ভালুকা : বিশিষ্ট শিল্পপতি,দানবীর খ্যাত,রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বসম্পন্ন,সফল সংগঠক আলহাজ্ব এম এ ওয়াহেদ ময়মনসিংহ-১১(ভালুকা) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসছেন বলে এলাকায় রব উঠেছে কিছুদিন ধরেই।এই রব আরো জোরালো হয়ে উঠেছে ওয়াহেদের ব্যাপক গনসংযোগে এর মাধ্যমে। ১১টি ইউনিয়নে ইউনিয়নে যাওয়া,নেতাকর্মীদের খোঁজ খবর রাখা,অসুস্থদের দেখতে যাওয়া ও টুঙ্গীপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত করার মাধ্যমে তিনি গনসংযোগ শুরু করেন।তিনি উথুরা,মেদুয়ারী,মল্লিকবাড়ী,ডাকাতিয়া,ভরাডোবা এলাকায় সব শ্রেণীর মানুষের সাথে সৌজন্য স্বাক্ষাত করেন তাকে এক নজর দেখা ও তার সাথে পরিচয় হওয়ার জন্য সাধারণ মানুষ উপচে পড়ে।
ওয়াহেদ নিজ এলাকা ভালুকা থেকে আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন-এমন সম্ভাবনার আঁচ পেয়ে এলাকার সাধারণ মানুষ অনেকটাই উচ্ছ্বসিত। তাদের অনেকেই মনে করেন ,ওয়াহেদ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচনে লড়লে অনায়াসে জিতবেন এবং ভবিষ্যতে দলের বা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় ঠাঁই পাবেন।এতে “অবহেলিত”এলাকায় উন্নয়নের সুযোগ সূষ্টি হবে।তবে ওয়াহেদের এই জনসংযোগ এবং আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিয়ে ভোটে লড়ার গুঞ্জনে বেজার বিএনপি ঘরনার ভোটাররা।
গত দুটি ঈদে ওয়াহেদ সস্ত্রীক গ্রামের বাড়ীতে ঈদ ও এলাকায় ব্যাপক জনসংযোগ করেন।অবশ্য এর আগেও তিনি প্রতি ঈদে নিজ এলাকায় খোঁজ খবর,অসহায়দের সহায়তা,যাকাতের বস্ত্র,চাল,চিনি,সেমাই সহ নিত্য প্রয়োজনীয় সকল কিছু দিয়ে আসছেন ২০ বছর যাবত।তার দানে মসজিদ.মাদ্রাসা নির্মাণ,মন্দির ও গির্জা পাঁকাকরণ সহ স্থানীয় স্কুল কলেজে মোটা অংকের অনুদান,বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎত বার্ষিকীতে উপজেলার সকল ইউনিয়নে কাঙ্গালীভোজ ও দোয়ার আয়োজনে অর্থ দিয়ে সহায়তা করা সহ সকল সামাজিক কাজে সে নিজেকে সংপৃক্ত রেখেছেন। আর সেই সময় থেকেই সাধারণ মানুষের মধ্যে নির্বাচনের বিষয়টিও আলোচনায় আসে ।


আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন নিয়ে আসছেন কি না জানতে চাইলে আলহাজ্ব এম এ ওয়াহেদ বলেন,জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি চান,আর আমার দল যদি সার্পোট দেয় তাহলে আমি নির্বাচন করবো, এই গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনে আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি আশাকরি শতভাগ স্বচ্ছ নির্বাচনের মাধ্যমে প্রিয় নেত্রীকে এই আসনটি আবারো উপহার দিতে পারবো। আমি সততার মধ্যে থেকে রাজনীতি করতে চায়,অসহায়ের পাশে থাকতে চাই যেমন বিগত দিনে ছিলাম -এখনও আছি ।
এলাকার সাধারণ ভোটারদের আকাক্সক্ষা, ওয়াহেদ নির্বাচনে আসুক। ডাকাতিয়ার ভ্যান চালক চাঁন মিয়া বলেন,তিনি(ওয়াহেদ) নির্বাচনে এলে আমাদের জন্যই তো ভালো। তিনি দানবীর আমাকে ঘর দিয়েছেন আমি ও আমাদের মত গরীবের দাবি তিনি নির্বাচনে আসুক,তাহলে এলাকায় উন্নয়ন হবে । ওয়াহেদ নির্বাচন করলে আমরা সাধারণ ভোটাররা তাঁকেই ভোট দিবো।
মল্লিকবাড়ীর নুরুল আমিন জাকির বলেন,ওয়াহেদ নির্বাচন করলে এক চান্সে পার হয়ে যাবে।তাঁকে ভোট দিয়ে এগিয়ে নেওয়া তো আমাদের দায়িত্ব।
ভালুকা উথুরার চা দোকানি সোলাইমান হোসেন বলেন,ওয়াহেদ আমাদের বাজারে আইছিলো।ছোট বড় সবার সঙ্গে কথা বলেছে। আমার মনে হয় শেখ হাসিনা তাকেই মনোনয়ন দিবেন,পারও হবেন বিপুল ভোটে।তিনি আরও বলেন আমাদের এই রহম নেতাই দরকার,যে এলাকার উন্নয়নের কথা বলতে পারবে সংসদে,তিনি এমপি না হয়েই ভালুকায় কোটি কোটি টাকার সামাজিক উন্নয়ন করছে।ব্যবসায়ী কামরুল বলেন,ওয়াহেদ যদি নির্বাচন করে তাহলে আমরা তাকেই ভোট দিব।
অপরদিকে সাধারণ ভোটাররা ওয়াহেদ কে ভোটে চাইলেও স্থানীয় আওয়ামী লীগের সুবিধাবাদী অনেক নেতাই তা চান না।আর ওয়াহেদের ব্যক্তিগত ইমেজ,ও অনেক পরিবারকে স্বচ্ছলতায় আনা,মানুষের বিপদে পাশে থাকার এইসব গুনের কারেণে বেকায়দায় আছে ভালুকার বিএনপি।নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বিএনপি নেতা বলেন,এইবার ভালুকার আসনটি তারা পূর্ণরুদ্ধার করার চেষ্টা করবে কিন্তু ওয়াহেদ নৌকার মাঝি হলে সে আশা গুরেবালি হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী।

অগ্রসর ভালুকার মহাসচিব কবি,লেখক,লুৎফর চৌধুরী বলেন,ওয়াহেদ একজন সাদা মনের মানুষ .ভালুকায় তার ব্যক্তিগত ইমেজ ও সমর্থন আছে ।সে এবার মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচন করলে শতভাগ জয়লাভের আশা করা যায়। তিনি আরও বলেন,ক্ষুদার্থ অবস্থায় জনসেবা হয় না .যে গুনটা ওয়াহেদের আছে কারন হিসাবে তিনি বলেন,তিনি একজন,সচ্ছল ব্যবসায়ী,সফল সংগঠক,ও দানবীর লোক । আমরা অন্তত তার চরিত্রে কখনও অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারীর সম্ভাবনা দেখি না ।

https://www.bkash.com/