রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১১:৫০ অপরাহ্ন

পলাশতলীতে রাস্তা বন্ধ করায় ৪০ পরিবার দু:চিন্তায়

ফুলবাড়িয়া নিউজ 24 ডট কম : ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার রাধাকানাই ইউনিয়নের পলাশতলী চালাপাড়া গ্রামে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করায় ৪০টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। সালিশী বৈঠকের সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে জনস্বার্থে নির্মিত রাস্তা নির্মাণে বাঁধা প্রদান করার অভিযোগ উঠেছে এক প্রবাসীর স্ত্রী ও স্বজনদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার রাধাকানাই ইউনিয়নের পলাশতলী চালাপাড়া এলাকায়। ফলে বিরোধটি আইনগতভাবে মিমাংসার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন দফতরে আবেদন করেও কোন সমাধান পাচ্ছে না ভোক্তভোগি পরিবার।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চালাপাড়া এলাকায় মোহাম্মদ আলী, সুরুজ আলী সহ ৪০টি পরিবারের বসবাস। এসব পরিবারে শিশু-বৃদ্ধসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষজন আছে। যখন মানুষের মাঝে ভেদাভেদ কমছিল তখন বিভিন্নভাবেই চলাচল করতো বিধায় কোন সমস্যা ছিল না। সম্প্রতি নতুন নতুন বাড়ি-ঘর নির্মাণের ফলে মানুষের চলাচলও বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। সৃষ্ট সমস্যা নিরসনকল্পে বৃহৎ পরিসরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া শিমুল তরফদার ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড মেম্বার, ওয়ার্ড সদস্য, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং সাধারণ জনগনের উপস্থিতিতে ১৩ জুলাই একটি সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এরপর রাস্তার কাজ শুরু করে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু পরদিন প্রবাসী আ. হাই এর স্ত্রী রুবিনা আক্তার, আবুবকর সিদ্দিক, কাজল মিয়া, ছিদ্দিক মিয়া নির্মিতব্য রাস্তাটি কেটে ফেলেন। রুবিনা আক্তার গলা ফাটিয়ে বলেন, রাস্তা নির্মাণ করা হলে প্রয়োজনে খুনের ঘটনাও ঘটবে। নারী নির্যাতন মামলা দিয়ে এলাকায় জ¦ালিয়ে রাখা হবে।
মোহাম্মদ আলী জানান, আমরা ব্রিটিশ আমল থেকে এ রাস্তা দিয়ে আনাগুনা করি। এ রাস্তা উদ্ধারে আমরা কোন দাঙ্গাহাঙ্গামায় যেতে চাই না, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চাই।
বয়োবৃদ্ধ হযরত আলী বলেন, এই ধরনের উশৃঙ্খল মহিলা আমাদের সমাজে আর নেই। এ থেকে আমরা পরিত্রাণ চাই।
রুবিনা আক্তার বলেন, প্রয়োজনে আমি ও আমার সন্তানাদি নিয়ে মরবো তারপরও রাস্তা দিতাম না।
স্থানীয় ইউপি মেম্বার আমিনুল এহেসান উজ্জল বলেন, এলাকার সব মানুষ একপক্ষে আর এই মহিলা একাই একপক্ষে। এরকম অসামাজিক মহিলা আর দেখি নাই। আমার এলাকাটা জ¦ালাইয়া ফালাইছে।

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইট © ফুলবাড়িয়ানিউজ২৪ ডট কম ২০২০
Design & Developed BY A K Mahfuzur Rahman