রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন

ত্রিশালে বিএনপির দু’গ্রুপের সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ আহত ১৫

ত্রিশাল সংবাদদাতা : ময়মনসিংহের ত্রিশালে পৌর বিএনপির বার্ষিক সম্মেলনে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ নেতাকর্মী। সাংবাদিক আহত হওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দ্বা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন। তারা অবিলম্বে দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবী করেন।
রাজপথের আন্দোলনকে শক্তিশালী করতে প্রায় একযুগ পর দলীয় কার্যালয়ে শুক্রবার সকাল ১১টায় ত্রিশাল পৌর বিএনপির বার্ষিক সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক ও জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ডা. মাহবুবুর রহমান লিটন। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপি ময়মনসিংহ বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স।

পৌর বিএনপির আহবায়ক গোলাম রব্বানী বাদলের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট ওয়ারেস আলী মামুন, শরীফুল আলম, দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ন-আহবায়ক জাকির হোসেন বাবলু ও আলমগীর মাহমুদ আলম, ফখর উদ্দিন বাচ্চু প্রমূখ।

 

বিকেলে সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশন চলাকালে উপস্থিত কাউন্সিলদের সমর্থন বা ভোট ছাড়াই সুপার ফাইভের ব্যক্তিগত রেজুলেশনের ভিত্তিতে সভাপতি পদে আলেক চান দেওয়ান ও সাধারন সম্পাদক মোশারফ হোসেন মিলনের নাম প্রস্তাবে নিয়ে আসে ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহবায়ক ডা. মাহবুবুর রহমান লিটন। এতে অন্যান্য সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক প্রার্থী, কাউন্সিলর ও নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে পদপ্রাপ্ত ও পদবঞ্চিত সমর্থকদের দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

 

সংঘর্ষে বিএনপি নেতা আমিনুল ইসলাম মিন্টু, আবদুল জলিল, ফুয়াদ, গোলাম মোর্শেদ, ফজলুল হক, রুহুল আমিন, তোফাজ্জল হোসেন ও ত্রিশাল প্রেসক্লাবের সহযোগি সদস্য সাংবাদিক রুকুনুজ্জামান সরকার রাহাতসহ আহত হন ১৫ নেতাকর্মী। আহতদের উদ্ধার করে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে গুরুতর আহত সাংবাদিক রুকুনুজ্জামান সরকার রাহাতকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন কর্মরত চিকিৎসক।

পরে পদবঞ্চিত নেতাকর্মী ও কাউন্সিলররা বিক্ষোভ মিছিল শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পকেট কমিটি বাতিলের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেন। পূর্নাঙ্গ কাউন্সিলর তালিকা প্রকাশ না করা ও গোপন কমিটি গঠনের প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন সভাপতি পদপ্রত্যাশী ও সম্মেলনের কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম আমিন সরকার, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী রেজাউল করীম সেলিম।

এদিকে সাংবাদিক তার পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে হামলাকারীদের কবলে পড়েন। সাংবাদিক আহত হওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দ্বা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন। তারা অবিলম্বে দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবী করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

কপিরাইট © ফুলবাড়িয়ানিউজ২৪ ডট কম ২০২০
Design & Developed BY A K Mahfuzur Rahman