গৌরীপুরে রাস্তা খুঁড়ে রাখায় জন দুর্ভোগ ॥ দ্রুত কাজ সম্পন্নের নির্দেশ


প্রকাশের সময় : মে ১৭, ২০১৮, ১২:৩৭ PM
গৌরীপুরে রাস্তা খুঁড়ে রাখায় জন দুর্ভোগ ॥ দ্রুত কাজ সম্পন্নের নির্দেশ

মশিউর রহমান কাউসার, গৌরীপুর : ময়মনসিংহের গৌরীপুরে এলজিইডি’র আইআরআইডিপি প্রকল্প-২’র বিভিন্ন পাকা রাস্তা নির্মাণে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও সময়ক্ষেপনের অভিযোগ ওঠেছে। এ উপজেলার বেশ কয়েকটি রাস্তায় প্রায় চার মাস ধরে মাটি খুঁড়ে বক্স করে রাখায় তাতে বৃষ্টির পানি জমে কর্দমাক্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে স্থানীয় জনগনকে চলাচলের ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। মানুষের দুভোর্গ লাঘবে দ্রুত রাস্তার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন এলজিইডি কর্তৃপক্ষ। এ উপজেলার বেতান্দর গ্রামের হুমায়ূন (৩২) জানান ৫ জানুয়ারি বোকাইনগর ইউনিয়নে কান্দাপাড়া থেকে বোকাইনগর ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত ৬৫ লক্ষ ৩১ হাজার ৪৬৭ টাকার চুক্তিমুল্যে ১১ শ ৭৫ মিটার নতুন পাকা রাস্তার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ এমপি। চার মাস আগে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স শাহরিয়া এন্টার প্রাইজ পুরো রাস্তার মাটি খুঁড়ে বক্সকরণ ছাড়া আর কোন কাজ সম্পন্ন করেননি। বোকাইনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ হাবিব উল্লাহ জানান উক্ত রাস্তাটিতে মাটি খুঁড়ে বক্স করে রাখায় বৃষ্টির পানি জমে রাস্তাটি বর্তমানে ছোট খালে পরিণত হয়েছে। রাস্তার বেহাল অবস্থার কারনে এ ইউনিয়নের পাঁচ গ্রামের মানুষকে উপজেলা শহরে যাতায়াতের ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অপরদিকে এ উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নে গুজিখা কেরামতিয়া মসজিদের এলজিইডি’র আইআরআইডিপি প্রকল্প-২’র নতুন রাস্তাটির এক বছর পূর্বে ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করা হলেও এখনো শেষ হয়নি রাস্তার কাজ। এদিকে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার রাস্তার মাটি খুঁড়ে বক্স করে রাখায় তাতে পানি জমে কর্দমাক্ত হয়ে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে ওই মসজিদে নামাজ আদায় করতে আসা শত শত মুসল্লীসহ স্থানীয় লোকজনকে যাতায়াতের ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশলী আবু সালেহ মোঃ ওয়াহেদুল হক জানান বারবার তাগিদ দেয়া সত্বেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো রাস্তার কাজ সম্পন্ন করছেন না। তিনি বলেন উক্ত বিষয়ে অবগত হওয়ার পর ময়মনসিংহ জেলার এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সেলিম সরকার এক সপ্তাহের মধ্যে রাস্তার কাজ শুরু করার জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছেন। যদি এ সময়ের মধ্য তারা কাজ শুরু না করেন তাহলে নতুন করে রাস্তার টেন্ডার আহবান করা হবে।

https://www.bkash.com/