অনিয়মের দায় এড়াতে শিক্ষক হয়েও অস্বীকার করলেন


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১০, ২০১৮, ১০:১৬ AM
অনিয়মের দায় এড়াতে শিক্ষক হয়েও অস্বীকার করলেন

মশিউর রহমান কাউসার, গৌরীপুর : নিজের দুর্র্নীতি ও অনিয়মের দায় এড়াতে গিয়ে প্রাথমিক স্কুলের একজন শিক্ষক হয়েও মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করে বললেন আমি শিক্ষক না। স্থানীয় সাংবাদিকদের বিভ্রান্ত করা লক্ষে নিজের প্রকৃত পরিচয় গোপন করলেন ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার সহনাটি ইউনিয়নের ১১৮ নং যোগীরডাংগুরী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটায় সরজমিনে উক্ত স্কুলে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী বিহীন স্কুলটি তালাবন্দি অবস্থায়। এসময় স্কুলের আশপাশের লোকজন এসে জানান নির্ধারিত সময়ের প্রায় দেড় ঘন্টা আগেই স্কুল ছুটি দিয়ে শিক্ষকরা চলে গেছেন। তারা অভিযোগ করে বলেন এ চিত্র শুধু আজকের নয় প্রতিদিনই নির্ধারিত সময়ের আগেই স্কুল ছুটি দেয়া হয় এবং সকালে শিক্ষকগণ আসেন সাড়ে দশটার পরে। এতে শিক্ষার্থীদের পাঠদান চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। স্কুলের শিক্ষার্থীর অভিভাবক সঞ্জু মিয়া (৩৫) অভিযোগ করেন তার তিন কন্যা ওই স্কুলে অধ্যয়নরত। শিক্ষকদের দেরী করে স্কুলে আসা ও নির্ধারিত সময়ের আগে ছুটি দেয়া এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় তার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন রফিকুল ইসলাম গত তিন মাস আগে স্কুলের ব্রেঞ্চ বিক্রি করে দেয়ার সময় স্থানীয় লোকজন ভালুকাপুর বাজারে হাতেনাতে আটক করেছিল। স্কুলের বিদ্যুতসাহী আনোয়ারা বেগম ও সাবেক ইউপি মেম্বার আবু তাহের স্কুলের ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এসব অনিয়ম দুর্নীতির প্রতিবাদ করেও কোন প্রতিকার পাচ্ছেনা। এ বিষয়ে মন্তব্য জানার জন্য রফিকুল ইসলামের ০১৭৩৪১২৮২১৭ নাম্বারে কল করা হলে তিনি বলেন আমি ওই স্কুলের শিক্ষক না। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুয়েল আশরাফকে এ বিষয়ে অবগত করা হলে তিনি জানান অনিয়ম-দুর্নীতি ও প্রকৃত পরিচয় গোপন করায় উক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

https://www.bkash.com/