ব্রেকিং নিউজঃ-
Home » অনুসুন্ধানি প্রতিবেদন » কুশমাইল আধুনিক ইউপি ভবনে আশানুরূপ সেবা পাচ্ছে না নাগরিকরা: উন্নয়ন কাজে ধীরগতি

কুশমাইল আধুনিক ইউপি ভবনে আশানুরূপ সেবা পাচ্ছে না নাগরিকরা: উন্নয়ন কাজে ধীরগতি

Share on Facebook152Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0

Pic kusmil UP Baban000

মো: আব্দুস ছাত্তার : কুশমাইল ইউনিয়ন পরিষদের আধুনিক ভবন হয়েছে কিন্তু আশানুরূপ সেবা পাচ্ছে না নাগরিকরা- উন্নয়ন কাজে ধীরগতি। উপজেলা সদর থেকে ৩কিলোমিটার পশ্চিমে ফুলবাড়ীয়া টু হাটকালীর বাজার রাস্তার কুশমাইল ছলির বাজার নামক স্থানে ইউনিয়ন পরিষদটি অবস্থিত। ২০১১সালের আদম শুমারির তথ্য অনুযায়ী ৩৭হাজার ৭৫জন লোকের বাস অত্র ইউনিয়নে। এর মধ্যে পুরুষ ১৮হাজার ১৯জন এবং মহিলা ১৯হাজার ৫৬জন। মো: শামছুল হক দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত চেয়ারম্যান। দলীয় সরকারের অধীনে প্রথম নির্বাচনে প্রথম জনপ্রতিনিধিও তিনি। সেবা বৃদ্ধির জন্য সর্বাতœক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে দাবী চেয়ারম্যানের।
উপজেলার ১৩ইউনিয়নের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের অংশ হিসেবে আজ ৩নং কুশমাইল ইউনিয়নের সেবা ও উন্নয়ন ফিরিস্তি তুলে ধরা হলো।
৩০/০৭/২০১১খ্রিষ্টাব্দে বর্তমান স্থানে আধুনিক ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের ফলক উম্মোচন করেন জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো: মোসলেম উদ্দিন এ্যাডভোকেট। সরকারী বেশ কয়েকটি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ইউনিয়ন পরিষদ ভবন থেকে সেবা দেয়ার কথা। তম্মধ্যে এলজিইডি- ঘুমানের কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে, কৃষি বিভাগ তালাবদ্ধ- তবে সপ্তাহে কোন কোন দিন খোলা থাকে তার সুনির্দিষ্ট তথ্য জানা যায়নি। শিক্ষ বিভাগে- ধান রাখার কাজে ব্যবহৃত। জনস্বাস্থ্য বিভাগে- লেয়ার মুরগীর খাবার রাখা আছে। লাইফ স্টক- তালা, খোলার কোন আলামত দেখা যায়নি। ভিডিপি রুম বরাদ্দ আছে। মেম্বারদের রুমে নির্মাণ কাজের মালামাল রাখা আছে।
ডিজিটাল সেন্টার : ডিজিটাল সেন্টার পরিচালনা করেন সাধারণত উদ্যোক্তা। অত্র ইউনিয়নের উদ্যোক্তা হিসেবে রয়েছে সাগর মিয়া। তার মতে আমাদের পরিষদের ওয়েব সাইডে সকল কিছু আপডেট। আমরাও বিশ্বাস করি দেশ ডিজিটাল হচ্ছে- দেশের সকল কিছু কে ডিজিটাল করার চেষ্টা চলছে। ইউনিয়ন পরিষদের সকল উন্নয়ন ও কর্মকান্ড ওয়েব পোর্টালে পাওয়া যাওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমরা বাস্তবতার সাথে কাজের মিল খুঁজতে যথেষ্ট চেষ্টা করেছি। উদ্যোক্তা সাগর মিয়া জানিয়েছিলেন রুমা আক্তার নামের তার একজন সহকর্মী আছেন। তিনদিনেও তার দেখা মিলেনি। ডিজিটাল সেন্টারে ফটোকপি ৪/৫বছর যাবত, ডেস্কটপ, প্রিন্টার দেড় দুই বছর যাবত অচল। ফলে সীমিত হয়ে আসছে ডিজিটাল সেন্টারের সেবার গতি। জমির পর্চা, বিদ্যুৎ বিলসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সেবা দিতে পারছে না, যদি এ সেবাগুলো দেয়া যেত তবে সাধারণ মানুষ অনেক হয়রানি থেকে রক্ষা পেত বলে মনে করেন সেবাদানকারী ও সেবাগ্রহিতারা। ইউনিয়নের ওয়েব পোর্টালের পাসওয়ার্ড না জানার কারণে আপডেট দেয়া সম্ভব হয় না, উপজেলা প্রোগ্রামারের কাছে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তেমন সাড়া মেলেনি।
সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের খোঁজ খবর নিতে ইউপি সচিব মো: আনছার উদ্দিন এর সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করে তথ্য পাওয়া সম্ভব হয়েছে।
টিআর (১ম পর্যায়) : চক রাধাকানাই খাঁ বাড়ী হতে জলিল ডাক্তারের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার করার কথা থাকলেও সেই রাস্তা দিয়ে যাওয়াই যায় না। স্থানীয়রা মনে করেন- আমাদের এখান থেকে নির্বাচনে একজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কারণে এখানে উন্নয়ন কর্মকান্ড কাগজে-কলমে।
বরুকা জয়নাল মেম্বারের বাড়ী হতে নাপিত বাড়ীর রাস্তা মেরামত যা গত অর্থ বছরের প্রকল্পেও ছিল। সে বছরও কাজ হয়নি, এবছরও হয়নি।
৪০দিন (১ম পর্যায়) : বরুকা সুরুজ মেম্বার বাড়ী হতে ইদ্রিসের দোকান হয়ে ওদ্দুর বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা সংস্কার। এখানে শুধু নামমাত্র ওদ্দুর বাড়ীর সামনে বিড বালু প্রদান করা হয়েছে আর কোথাও কুদাল পড়েনি।
চকরাধাকানাই মধ্যপাড়া গোরস্থানের মাটি ভরাট করার কথা থাকলেও সেখানে মাটি পাওয়া যায়নি।

ইউপি চেয়ারম্যান মো: শামছুল হক জানান, উন্নয়ন কর্মকান্ডে আরও বেশি স্বচ্ছতা বৃদ্ধির জন্য চেষ্টা করা হবে। ইউনিয়ন পরিষদ ভবনটি সেবা মুখী করতে সংশ্লিষ্ট দফতরগুলো সচল করতে জরুরি ভিত্তিতে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সাথে কথা বলা হবে।

Related posts:

About fulbaria

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*