,

ThemesBazar.Com

গৌরীপুরে ১৪৪ ধারা জারি যুবলীগের সম্মেলনের মঞ্চে অগ্নিসংযোগ ॥ ইউএনও’র বাসাসহ বিভিন্ন পয়েন্টে পেট্রোল বোমা

মশিউর রহমান কাউসার, গৌরীপুর : ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্থানীয় বঙ্গবন্ধু চত্বরে বুধবার (২৯ নভেম্বর) দিনগত রাতে উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন মঞ্চে দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে। এছাড়া পরদিন সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসাসহ শহরের বেশ কয়েকটি পয়েন্টে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করা হয়েছে। এ ঘটনায় জনসাধারণের জানমাল ও উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্জিনা আক্তার বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) বেলা ১২ থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত স্থানীয় বঙ্গবন্ধু চত্বর, শহীদ হারুন পার্কসহ আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেছেন।

জানা গেছে বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায় উপজেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে আগেরদিন সন্ধ্যায় উল্লেখিত স্থানে মঞ্চ প্রস্তুত করা হয়েছিল। বুধবার দিনগত রাতে ওই মঞ্চে দুর্বৃত্তরা অগ্নিসংযোগ করে মঞ্চ পুড়িয়ে দেয়। এদিকে সম্মেলনের দিন সকাল ৯ টা থেকে সোয়া দশটার মধ্যে পৌর শহরের উত্তর বাজার মোড়, কালীপুর মোড়, বালুয়াপাড়া মোড়, খেলার মাঠ মোড় ও ইউএনও মর্জিনা আক্তারের বাসার দ্বিতীয় তলায় পেট্রল বোমা নিক্ষেপ করে দুর্বুত্তরা। এতে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। মর্জিনা আক্তার সাংবাদিকদের জানান, সকাল সোয়া দশটার দিকে তার বাসায় পিছনের রাস্তা থেকে কে বা কাহারা এ পেট্্রল বোমা নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়। এসময় তিনি অফিসে অবস্থান করছিলেন। পেট্রল বোমা নিক্ষেপের ফলে বাসায় থাকা তাঁর দুই শিশু সন্তানসহ অন্যান্য লোকজন আতংকগ্রস্থ হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে গৌরীপুর থানার পুলিশ ও ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার ফায়ার সার্ভিস টিমের সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। গৌরীপুর থানার এসআই জাহাঙ্গীর ইউএনও’র বাসাসহ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পেট্রল নিক্ষেপের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ দেলোয়ার আহাম্মেদ জানান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। স্থানীয় নেতা-কর্মীরা জানান, দীর্ঘ চৌদ্দ বছর পরে উপজেলা যুবলীগের সম্মেলনকে ঘিরে এক সপ্তাহ পূর্ব থেকে গৌরীপুরে সম্ভাব্য প্রার্থীদের গণসংযোগ ও প্রচারণার পাশাপাশি উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এনিয়ে যুবলীগের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল। এদিকে গভীর রাতে মঞ্চ পুড়িয়ে দেয়া ও পেট্রল বোমা নিক্ষেপের ঘটনায় উক্ত সম্মেলন নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। বর্তমানে শহরে চরম উত্তেজনার পাশাপাশি যুবলীগের দু’গ্রপের মাঝে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা বিরাজ করছে। এবিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন জুয়েল জানান, গভীর রাতে সম্মেলনের মঞ্চে অগ্নিসংযোগ ও ইউএনওর বাসাসহ শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পেট্রল বোমা নিক্ষেপর ঘটনা জামাত-বিএনপির কুচক্রী মহলের সম্পৃক্তা থাকতে পারে অথবা দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারনেও ঘটতে পারে। এ বিষয়ে নিশ্চতভাবে কিছু বলা যাচ্ছেনা।

ThemesBazar.Com

     এ জাতীয় আরও সংবাদ