,

ThemesBazar.Com

ছাত্রলীগ নেতা হৃদয় আহত করার ঘটনায় ৫জনকে আসামী করে থানায় মামলা

শহিদুল ইসলাম : ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ইয়াছির আরাফত হৃদয় উপর হামলার ঘটনায় ফুলবাড়ীয়া থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখ করে ১৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামলা হয়েছে। মামলা নং- ১৫ তাং- ২৪/১১/২০১৭ইং। ১৪৩/ ৪৪৮/ ৩২৩/ ৩২৫/ ৩০৭/ ৩৮০/ ৪২৭/ ১১৪ পেনাল কোড-১৮৬০ ধারায় মামলাটি করেন আহত হৃদয়ের বাবা মো: গোলাম ফারুক সুরুজ। গত ২৪নভেম্বর ফুলবাড়িয়া থানায় মামলা করলে ঐ রাতেই মামলাটি এফআইআর করা হয়।
মামলা সূত্রে জানা যায়, তিনি (সুরুজ) একজন পুস্তক ব্যবসায়ী এবং পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক। দোকানের বিপরীতে রিয়াজ উদ্দিন ভিলা, ফুলবাড়ীয়া পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে তার বাসা, বাসার ২য় তলায় সমিতির অফিস। ১৬নভেম্বর দুপুর আড়াইটার দিকে অফিসে বসে হৃদয় সহপাঠীদের সাথে নিয়ে কথা বলছিল। ঐ সময় জোরবাড়ীয়া মড়লপাড়া গ্রামের খোকন মিয়ার পুত্র মো: শরিফুল ইসলাম শরিফ, নুর মামুদ খানের পুত্র মো: নাহিদ মিয়া, মো: ইউনুছ আলীর পুত্র ইব্রাহীম, চানু মিয়ার পুত্র মো: রুহুল আমিন, আ: রহমান গুডুর পুত্র মো: জোবায়ের রহমান তৌহিদ দেশিয় অস্ত্রে-সজ্জে সজ্জিত হয়ে হৃদয় কে আক্রমন করে। এ সময় সন্ত্রাসিরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও ভাংচুর করে। আহত হৃদয়কে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্বরত ডাক্তার তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। বর্তমানে হৃদয় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
তবে এটি দলীয় কোন কোন্দল কিনা এ বিষয়ে জানতে উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম রকিব এর মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই নবীনুর জানান, আসামীরা পলাতক রয়েছে, একাধিকবার অভিযান পরিচালিত হয়েছে তবে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত।

ThemesBazar.Com

     এ জাতীয় আরও সংবাদ